শৈলকূপায় ১০৯ বছরের বৃদ্ধার ভোটটি দিল কে ?

131

১০৯ বছরের বৃদ্ধার ভোটটি দিল কে ?

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ
শৈলকুপা উপজেলার কৃপালপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১০৯ বছরের বৃদ্ধা জেবুন্নেছা ভোট দিতে এসে দেখেন তার ভোট হয়ে গেছে। এদিন তিনি বেলা ১১টার দিকে ভ্যানে শুয়ে এসেছিলেন ভোট দিতে তিনি। কিন্তু ভোট দিতে না পেরে ফিরে যেতে হলো তাকে। বৃদ্ধার পোতা ছেলে নাইমুল ইসলাম নয়ন বুথে গিয়ে জানতে পারেন আগেই কে তার ভোট দিয়ে দিয়েছে। নয়ন জানান, আমার দাদি হাটতে পারলেও আমরা তাকে ভোট দিতে নিয়ে এসেছিলাম। ভোট নষ্ট করে তো লাভ নেই বলে। কিন্তু ভোট কেন্দ্রে বুথে গিয়ে জানতে পারি ভোট আগেই হয়ে গেছে। আমার দাদির ভোটটি দিল কে ? প্রশ্ন তোলেন নয়ন। বিষয়টি প্রিজাইডিং অফিসারকে জাননো হয়েছিল কিন্তু কোন লাভ হয়নি। কৃপালপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার রাকিবুল ইসলাম বৃদ্ধার ভোট হয়ে যাওয়া নিয়ে বলেন, আমি তো কাউকে চিনি না। প্রতিটা বুথে প্রার্থীদের পোলিং এজেন্ট রয়েছে। তারা না চিনতে পারলে আমার কি করার আছে বলেন। এদিকে ঝিনাইদহের শৈলকুপা ও হরিণাকুন্ডু উপজেলাা ২০ ইউনিয়নে আতংক ছাপিয়ে অনেকটা উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট গ্রহন শেষ হয়। বুধবার জেলার শৈলকুপার ১২ ও হরিণাকুন্ডু উপজেলা ৮ ইউনিয়নে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। ভোটের শেষ সময় ৪টা বাজার এক ঘন্টা আগেই অধিকাংশ কেন্দ্রে ভোট গ্রহন শেষ হয়ে যায়। কিছু কিছু কেন্দ্রে তারও আগে ভোট সম্পন্ন হয়। সকাল থেকে ঘন কুয়াশা আর কনকনে শীত উপেক্ষা কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোটারদের দীর্র্ঘ লাইন চোখে পড়ে। শৈলকুপায় ১১২ ও হরিণাকুন্ডুতে ৮২ কেন্দ্রে ভোট নেওয়া হয়। এসব কেন্দ্রের ৮০ ভাগ ঝুকিপূর্ণ চিহ্নিত করে প্রশাসন। কিন্তু কোথাও কোন অপ্রীতির ঘটনা ঘটেনি। সুষ্ঠ ভাট গ্রহনের জন্য ৬ প্লাটুন বিজিব, ১৫৭৪ জন পুলিশ এবং ৩২৯৪ আনসার মোতায়েন করা হয়। শৈলকুপার আবাইপুর রামসুন্দর মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় আলো স্বল্পতার কারনে মোমবাতি জ¦ালিয়ে ভোট নেওয়া হচ্ছে। শৈলকুপা উপজেলার ফুলহরি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভোটারদের দীর্ঘলাইন চোখে পড়ে। বাইরের পরিবেশ শান্তিপুর্ন থাকলেও মেম্বর প্রার্থীদের কারণে জাল ভোটের অভিযোগ ওঠে। হরিণাকুন্ডু উপজেলার আড়–য়াকান্দি গ্রামের মৃত মঙ্গল বিশ্বাসের শতবর্ষী স্ত্রী জবেদা খাতুন ভোট দিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন। জোড়াদহ ইউনিয়নের গবিন্দপুর ভোটকেন্দ্রে জাল ভোট দিতে গিয়ে আব্দুল্ল্হ নামে এক যুবক আটক হয়। ওই কেন্দ্রে স্বতন্ত্র প্রার্থীর এজেন্দদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ করা হয়।

নির্বাচন পুর্ব সহিংসতায় ভোটের
দিন আহত ব্যক্তির মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহের শৈলকুপায় নির্বাচন পুর্ব সহিয়সতায় আহত অখিল সরকার (৫৫) নামে এক নৌকার সমর্থক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তিনি কিত্তিনগর গ্রামের বাসিন্দা। পুলিশ জানায় গত ৩১ ডিসেম্বর শৈলকুপা উপজেলার কাতলাগাড়ি বাজারে নির্বাচনী সহিংসতায় হারান মন্ডল নামে নৌকার এক সমর্থক খুন হন। এ সময় আহত হন অখিল সরকারসহ বেশ কয়েক জন। অখিলকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাশী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ৪দিন পর তিনি ভোদের দিন বিকালে মারা যান। এঘটনার জের ধরে গত পহেলা ডিসম্বর জসিম উদ্দীন নামে আরো এক নৌকার সমর্থক খুন হন। শৈলকুপা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, নির্বাচন পুর্ব সহিংসতায় বুধবার বিকালে একজন মারা গেছেন বলে শুনছেন। নতুন করে উত্তেজনা এড়াতে সারুটিয়া ইউনিয়নে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here