চলুন জেনে নিই রেফ্রিজারেটর ব‍্যবহার বিধিঃ

223

রেফ্রিজারেটর ব‍্যবহার বিধিঃ

মাহবুবুর রহমান সম্রাট,ঝিনাইদহ
আমাদের অসতর্কতার কারণে আমাদের রেফ্রিজারেটর /ফ্রিজার অল্প কয়দিনে নষ্ট হয়ে।
রেফ্রিজারেটর /ফ্রিজার দীর্ঘদিন ভালো রাখার জন্য কিছু নিয়মাবলি দেওয়া হল

১। রেফ্রিজারেটর /ফ্রিজার স্থাপনের পূর্বে Body stand এর নীচে থেকে কর্কশীট সরিয়ে রাখতে হবে।
২। রেফ্রিজারেটর এর পাওয়ার সাপ্লাইটিতে কোন ধরনের ত্রুটি আছে কিনা তা নিশ্চিত হতে হবে।
৩। রেফ্রিজারেটর /ফ্রিজারে বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষেত্রে আলাদা সকেট ব্যবহার করুন।
৪। ফ্রিজে এর বিদ্যুৎ প্রবাহের জন্য সিঙ্গেল ফেজ এসি পাওয়ার ব্যবহার করতে হবে।
৫। Voltge 220V -240V, Frequency: 50 HZ.
৬। ফ্রিজটি স্থাপনের কমপক্ষে দুই ঘন্টা পর বিদ্যুৎ সংযোগ দিন।

৭। দুই ঘন্টা পর রেফ্রিজারেটরে/ ফ্রিজারে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে ভিতরে ঠান্ডা হওয়ার জন্য নূন্যতম 4 ঘন্টা পর্যন্ত অবশ্যই অপেক্ষা করুন।
৮। 4 ঘণ্টা পর রেফ্রিজারেটর/ ফ্রিজারে খাবার রাখুন।প্রথমে অল্প খাবার রেখে সেগুলো পর্যাপ্ত ঠাণ্ডা হতে দিনহ অতঃপর পর্যায়ক্রমে খাবার সংগ্রহ করুন।
৯। তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ সুইচ (থার্মোস্ট‍্যাট) ৪-৫ পজিশনে রাখুন।
১০। রেফ্রিজারেটর/ফ্রিজার যদি নড়াচড়ার প্রয়োজন হয় তবে পাওয়ার প্লাগ খুলে নিন এবং সোজা অবস্থায় নাড়াচাড়া করুন।পুনরায় সংযোগ দিতে 2 ঘন্টা অপেক্ষা করুন।

১১। খাবারের ধরণ অনুযায়ী রেফ্রিজারেটরের নির্দিষ্ট স্থানে খাবার সংরক্ষণ করুন।
১২। ঠান্ডা বাতাস চলাচলের জন্য রেফ্রিজারেটরের সংরক্ষিত এক খাবার থেকে অন্য খাবারের মাঝখানে কিছু জায়গা রাখুন।
১৩। রেফ্রিজারেটর/ ফ্রিজার যতদূর সম্ভব খাঁড়া অবস্থায় রেখে নাড়াচাড়া করুন।
১৪। শুস্ক ও পর্যাপ্ত বাতাস চলাচল করতে পারে ঘরের এমন জায়গায় রেফ্রিজারেটর /ফ্রিজার স্থাপন করুন।
১৫। পর্যাপ্ত বাতাস চলাচলের জন্য রেফ্রিজারেটর/ ফ্রিজারের চারপাশে জায়গা রাখুন।
১৬। গরম জাতীয় খাবার রেফ্রিজারেটর/ ফ্রিজারে সংরক্ষণ করবেন না। খাদ্য সংরক্ষণ করার পূর্বে অবশ্যই তা সাধারন তাপমাত্রায় নিয়ে আসুন।

১৭। টাটকা মাংস ফ্রিজে জমাটবদ্ধ করে রাখতে তা পুষ্টিগুণ বজায় রাখতে সাহায্য করুন।
১৮। ফল-মূল Crisper Box এ রাখুন। এগুলো যেন শুকিয়ে না যায় সে জন্য Wrapping Paper অথবা Polybag দিয়ে ভালো করে মুড়িয়ে রাখুন।
১৯। শাকসবজি ও বিনকার্ড জাতীয় খাদ্যদ্রব্য যা প্রচুর পরিমাণ পানি ধারণ করে সেগুলো Crisper Box এ Polybag দিয়ে ভালো করে মুড়িয়ে রাখুন।
২০। ফ্রিজে খাবার এমন ভাবে রাখতে হবে যেন খাবারগুলোর মধ্যে কিছুটা ফাঁকা জায়গা থাকে এবং ঠান্ডা বাতাস ভালো ভাবে চলাচল করতে পারে। খাবারগুলো শুকিয়ে এবং দুর্গন্ধযুক্ত না হয়ে যায়।
২১। দাহ‍্য পদার্থ যেমন – ইথেন, এলপি গ্যাস,গ্লু ইত্যাদি রেফ্রিজারেশন /ফ্রিজারে কখনও সংরক্ষণ করবেন না।

২২। সংরক্ষিত খাবারে বরফ জমলে খাবার বের করতে Ice Shovel ব্যবহার করুন। এ ক্ষেত্রে ধারালো কাঁচি,চামচ, চুরি ইত্যাদি বস্তু ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। এই অবস্থায় অপসারণের জন্য রেফ্রিজারেটর/ ফ্রিজার কিছু সময় বন্ধ রাখুন।
২৩। রেফ্রিজারেটর /ফ্রিজারের উপর ভারী বস্তু ও রাখা থেকে বিরত থাকুন।
২৪। প্রয়োজন ছাড়া বার বার রেফ্রিজারেটর/ ফ্রিজারের দরজা খোলা থেকে বিরত থাকুন।
২৫। বিদ্যুৎ চলে গেলে বিনা কারণে রেফ্রিজারেটর/ ফ্রিজারের দরজা খোলা থেকে বিরত থাকুন।
২৬। চালু অবস্থায় ভেজাহাতে বা ভেজা কোন বস্তু দিয়ে রেফ্রিজারেটর/ ফ্রিজার স্পর্শ করবেন না।
২৭। রেফ্রিজারেটর /ফ্রিজারের দীর্ঘস্থায়ী,ভালোভাবে চলার ও রক্ষণাবেক্ষণ করার জন্য উপরোক্ত নিয়মাবলী মেনে চলুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here