কালীগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনায় ফাঁকা গুলিবাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ

111

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার ছালাভরা এলাকায় গভীর নলকুপের পানি ভাটায় প্রবেশ করে ইট ভিজে যাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষকে হটাতে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ ও বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০ টার ভাটা মালিক আব্দুল মতিন বিশ্বাসের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ উপজেলার দূর্গাপুর গ্রামে ভাটায় এসে ১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে এবং প্রতিপক্ষের বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর করে। স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার সকালে ধানের বীজতলায় পানি দেওয়ার সময় গভীর নলকুপের পানি ইদুঁরের গর্ত দিয়ে ভাটায় প্রবেশ করে ইট ভিজে যায়। এ বিষয় নিয়ে ভাটা মালিক আব্দুল মতিন বিশ্বাস ও হোসেন আলীর মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরপর তারা হোসেন আলীর ছেলে রবিউল ইসলাম বাবুকে মারধর করে। এর এক পর্যায়ে ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ ঘটনাস্থলে এসে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে এবং ভাটার পাশে হোসেন আলীর বাড়িতে প্রবেশ করে ঘরের জিনিসপত্র ভাংচুর করে। হোসেন আলীর শ্যালক সেলিম উদ্দিন ওলি জানান, ইদুঁরের গর্ত দিয়ে ভাটায় পানি প্রবেশ নিয়ে ভাটার ম্যানেজার রহিম হোসেনের সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে রবিউল ইসলাম বাবুকে মারধর করে। ভাটার মালিক আব্দুল মতিন বিশ্বাস (পাতা মিয়া) ও পুলিশ এসে দুলাভাই হোসেন আলীকে ডেকে নিয়ে বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করেন। এ সময় ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ এসে গুলি করে। ২০/২৫ জনের একটি দল নিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করে দুলাভাই ও বোনকে মারধর করে ও টিভি, ফ্রিজসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এ ব্যাপারে ভাটার মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ মুঠোফোনে জানান, তার বাবাকে মারধর করে পাঞ্জাবী ছিড়ে দিয়েছে। এরপর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আমার লাইসেন্সকৃত শটগান দিয়ে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করি। কালীগঞ্জ থানার ওসি মুহা: মাহফুজুর রহমান মিয়া জানান, বিষয়টি শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। স্থানীয়রা বলছে, ভাটার মালিকের ছেলে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়েছে। এ ব্যাপারে এখনো কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নিব। ভাটার মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগের একটি লাইসেন্স করা অস্ত্র আছে। তবে আইনজ্ঞরা বলছেন গুলি বর্ষনের ঘটনা ঘটলে কারো অভিযোগের উপর পুলিশ ভরসা না করে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here